পরীক্ষার নম্বর বাড়ানোর টোপ দিয়ে ছাত্রীর গোপনাঙ্গে হাত

3bb1ef5cd3af031294875b64d9a57228x500x347x7-jpeg3480xপরিক্ষায় নম্বর বাড়িয়ে দেওয়ার টোপ দিয়ে ১৭ বছরের এক ছাত্রীকে যৌন হেনস্থার অভিযোগ উঠল স্কুলের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ভারতের ছত্তিশগড়ের রায়গড় জেলার সারিয়া থানা এলাকায়। গতকাল সন্ধেয় অভিযুক্ত প্রধানশিক্ষকের বিরুদ্ধে সারিয়া থানায় অভিযোগ দায়ের করে নির্যাতিতা ছাত্রীর পরিবার।

জানা গেছে, নির্যাতিতা সরস্বতী শিশু মন্দির স্কুলের ছাত্রী। ছাত্রীর পরিবারের অভিযোগ, গত ২৬ অক্টোবর প্রধানশিক্ষক তাঁর চেম্বারে ওই ছাত্রীটিকে ডাকেন। ক্লাস টুয়েলভের প্র্যাকটিক্যাল পরীক্ষায় ওই ছাত্রীকে ভালো নম্বর পাইয়ে দেওয়ার নাম করে তার গোপনাঙ্গে হাত দেন। তার সঙ্গে যৌন সম্পর্ক স্থাপন করার চেষ্টা করেন বলেও অভিযোগ।

এরপর কোনওক্রমে প্রধান শিক্ষকের চেম্বার থেকে বেরিয়ে সোজা বাড়ি চলে যায় ওই ছাত্রী। অভিভাবকদের সম্পূর্ণ বিষয়টি জানানোর পর তাঁরা যোগাযোগ করেন ওই স্কুলের পরিচালক সমিতির সদস্যদের সঙ্গে। পুরো ঘটনাটি বলেন। কিন্তু অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে তারা কোনও ব্যবস্থা নেয়নি বলে অভিযোগ।

শেষপর্যন্ত বুধবার পুলিশের সঙ্গে যোগাযোগ করে নির্যাতিতার পরিবার। এরপর গতকাল অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করা হয়। রায়গড়ের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ইউ বি এস চৌহান জানান, ‘সারিয়া থানা এলাকার সরস্বতী শিশু মন্দির স্কুলের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে নির্যাতিতার পরিবারের পক্ষ থেকে একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। এর ভিত্তিতে তদন্ত শুরু করেছি আমরা। এখনও পর্যন্ত কাউকে গ্রেপ্তার করা হয়নি।’

(25)

Share

Leave a Reply